Thursday , November 23 2017
শিরোনাম
You are here: Home / খুন / নরসিংদীতে ২ খুন

নরসিংদীতে ২ খুন

নরসিংদীতে ২ খুন

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

নরসিংদী সদর উপজেলার চিনিশপুরে শ্বশুরবাড়িতে যাওয়ার পথে স্ত্রীর সামনেই এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। অন্যদিকে মনোহরদী উপজেলায় মারধরের হাত থেকে শ্রমিকদের বাঁচাতে গিয়ে বখাটের কাঁচির আঘাতে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। চিনিশপুর কালীবাড়ির কাছে ঘটনাটি ঘটে গত বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে। নিহত ব্যক্তির নাম সুজন সাহা (৩৪)। তাঁর বাড়ি ঢাকার পীরেরবাগ এলাকায়। নিহত সুজনের বড় বোন সীমা সাহার অভিযোগ, প্রায় পাঁচ মাস আগে নরসিংদীর রাজাদী এলাকার কাশীনাথ সাহার মেয়ে অদিতি সাহার সঙ্গে বিয়ে হয় সুজনের। বিয়ের পর থেকেই অদিতি তাঁর শাশুড়ির মোবাইল ফোন নিয়ে সবার অগোচরে দীর্ঘ সময় কথা বলতেন। পরে সুজন ১৫ হাজার টাকায় একটি মোবাইল ফোন কিনে দেন অদিতিকে। সেই ফোন পাওয়ার পর থেকেই অদিতি ঘণ্টার পর ঘণ্টা অন্য কারো সঙ্গে কথা বলতেন। বিষয়টি জানার পর তাঁর কাছ থেকে মোবাইল ফোন কেড়ে নেওয়া হয়। এ নিয়ে স্বামী ও শাশুড়ির সঙ্গে মনোমালিন্য হয় অদিতির। সীমা সাহা জানান, গত বুধবার অদিতি নিজের গয়না ও কাপড়চোপড় নিয়ে মনসা পূজার নাম করে বাবার বাড়ির উদ্দেশে বের হয়। পরে সুজন তাঁকে নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে যান। রাত সাড়ে ১১টার দিকে ট্রেন থেকে নেমে তাঁরা রিকশা করে রাজাদী যাওয়ার পথে চিনিশপুর কালীবাড়ির অদূরে কতিপয় দুর্বৃত্ত তাঁদের পথ আটকায়। এ সময় দুর্বৃত্তরা সুজনকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরে তাঁর চিৎকারে পথচারী ও স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুজনকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নরসিংদীর সহকারী পুলিশ সুপার শাহরিয়ার আলম জানান, আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

শ্রমিকদের বাঁচাতে গিয়ে চা বিক্রেতা খুন: মনোহরদী উপজেলায় মারধরের হাত থেকে শ্রমিকদের বাঁচাতে গিয়ে বখাটের কাঁচির আঘাতে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন ওই বখাটেকে আটক করে পুলিশে দিয়েছেন। গত বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার গোতাশিয়া ইউনিয়নের বাঘেরহাট বাজারে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তির নাম মফিজ উদ্দিন (৫০)। বাঘেরহাট বাজারে তিনি চা বিক্রি করতেন। তাঁর বাড়ি গোতাশিয়া ইউনিয়নের সর্বলক্ষ্মণা গ্রামে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার সন্ধ্যায় স্থানীয় থার্মেক্স নিটওয়্যার মিলের কয়েকজন শ্রমিক কাজ শেষে বাঘেরহাট বাজার দিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় হঠাৎ করেই চকবগাদি গ্রামের মফিজ উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ইসলাম লাঠি দিয়ে ওই শ্রমিকদের এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকেন। তখন চা বিক্রেতা মফিজ উদ্দিন এগিয়ে গিয়ে সাইফুলকে বাধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সাইফুল পাশের একটি সেলুন থেকে কাঁচি নিয়ে মফিজ উদ্দিনের গলায় ও পেটে আঘাত করতে থাকেন। একপর্যায়ে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এ সময় তাঁর প্রচুর রক্তরক্ষণ হয়। পরে স্থানীয় লোকজন মফিজকে উদ্ধার করে মনোহরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসক মফিজ উদ্দিনকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে লোকজন সাইফুলকে ধরে পুলিশে হস্তান্তর করেন। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বছর দেড়েক আগেও সাইফুল এভাবে উপজেলার হাতিরদিয়া বাজারে এক ব্যবসায়ীকে হত্যা করেন। সেই মামলায় চার মাস আগে কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন তিনি। মনোহরদী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাফায়েত হোসেন পলাশ জানান, সাইফুল একজন বখাটে ও আধপাগলা প্রকৃতির। ঘটনার পর তাঁকে আটক করে থানায় নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

About admin

Comments are closed.

Scroll To Top