Tuesday , November 21 2017
শিরোনাম
You are here: Home / নির্যাতন / স্বামী-শাশুড়ির নির্যাতনে পঞ্চগড়ে করিনা বেগমের জীবন ওষ্ঠাগত

স্বামী-শাশুড়ির নির্যাতনে পঞ্চগড়ে করিনা বেগমের জীবন ওষ্ঠাগত

স্বামী-শাশুড়ির নির্যাতনে পঞ্চগড়ে করিনা বেগমের জীবন ওষ্ঠাগত
পঞ্চগড় প্রতিনিধি
সংসারে এক সন্তান নিয়ে স্বামী আর শাশুড়ির নির্যাতনে অসহায় হয়ে পড়েছে পঞ্চগড়ের মোছা. করিনা বেগম। ঘটনাটি ঘটেছে, পঞ্চগড় সদর উপজেলার সীমান্তবর্তী গ্রাম গড়িনবাড়ী ইউনিয়নের জোতদার পাড়ায়।
এলাকাবাসী ও করিনা বেগমের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত প্রায় পাঁচ বছর আগে ঐ গড়িনাবাড়ী ইউনিয়নের ঠাঠকরপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের কন্যা করিনা বেগমের সাথে একই ইউনিয়নের জোতদার পাড়া গ্রামের বাসিন্দা মো. ওসমান আলীর পুত্র মো. আনিছুর রহমানের (মাসি) বিয়ে হয়। যৌতুক হিসেবে মানুষের বাড়িতে কাজ করা করিনা বেগমের মা ৬০ হাজার টাকা প্রদান করেন। এর মধ্যে তাদের সংসারে এক মেয়ে আরফিনার জন্ম হয়। তার বয়স ৩ বছর। এর মধ্যে তাদের দাম্পত্য জীবনে চাহিদা বেড়ে যায়। যৌতুকের দাবিতে কৌশলে করিনার উপড় অন্যায়ভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকে। এক সময় শাশুড়ি মোছা. আফলাতুন বেগম নানাভাবে তার ছেলেকে উস্কে দেয় এবং খাবারসহ সবকিছু আফলাতুন তার নিজের ঘরে রেখে তালা লাগিয়ে বাইরে চলে যায়। এ প্রতিনিধি সেখানে গেলে এলাকার মানুষ ছুটে আসে। করিনার উপড় অত্যাচারের ঘটনা তুলে ধরে। এলাকাবাসী জানান, করিনাকে যখন বিয়ে করে তখন সে এলাকায় অন্য দশ জনের মতোই দেখতে ছিল। এখন সে খাওয়া ও যতেœর অভাবে হাড্ডিসার হওয়ার মতো অবস্থা। করিনা জানায়, তার শাশুড়ি তেল সাবান ঘরে রাখে। তাকে ব্যবহার করতে দেয় না। খাবার দেয় সামান্য এতে করিনার ক্ষুধা মিটে না। ফলে তার শরীর দুর্বল ও মানসিকভাবে অসুস্থ। করিনাকে রান্না করতে দেয় না। তার হাতের খাবার শাশুড়ি ও স্বামী খায় না। এব্যাপারে ঐ ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার মো. আব্দুল লতিফ জানান, আমি কয়েকবার বিষয়টি নিয়ে দেন-দরবার করে দিয়েছি। কিন্তু ছেলে ঢাকায় থাকে, রড মিলে শ্রমিকের চাকরি করে। এদিকে শাশুড়ি অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে, খাবারও দেয় না ঠিকভাবে। বাড়িতে অবস্থান থাকলেই স্বামী আনিছুর ও শাশুড়ি তাকে যৌতুকের কারণে এভাবে অত্যাচার করে। গত ১৯/১০/১৬ ইং দুপুরের দিকে করিনাকে বেদম মারপিট করে স্বামী ও শাশুড়ি। এ ঘটনা জানতে এলাকায় গেলে স্থানীয়রা ঘটনা স্বীকার করে বলেন, করিনার উপর নির্যাতন নিত্যদিনের ব্যাপার।
করিনার মা মোহসিনা বেগম জানান, তিনি অন্যের বাড়িতে কাজ করেন। তারপরেও মেয়ের সুখের জন্য সব সময় কাপড়-চোপড় এনে দেন। তাও তার মেয়ের সুখ নাই। তিনি জানান, মারপিটের কথা শুনে এলাকায় ছুটে আসেন। প্রতিবেশী রুবেল জানান, ইউপি সদস্য কিছুদিন আগে স্থানীয় গোয়াল পাড়ায় এহেন আচরণের জন্য আনিছুরকে উত্তম-মাধ্যম দেয়। তারপর অত্যাচার আরো বেড়ে যায়। তবে স্বামী ও শাশুড়ি বলেন, তার দোষে তাকে মারপিট করা হয়। মানুষ কি জানে।
এলাকাবাসী জানান, আনিছুর ঢাকায় চাকরি করে মাসে কয়েকবার বাড়িতে আসে। তারা আরো জানান, এ ধরনের নির্যাতন করিনার জীবননাশের হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনের দেখা দরকার।

About admin

Comments are closed.

Scroll To Top