Thursday , November 23 2017
শিরোনাম
You are here: Home / নির্যাতন / লক্ষ্মীপুরে শিশু শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

লক্ষ্মীপুরে শিশু শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্কঃ

লক্ষ্মীপুরে আলাউদ্দিন (১৩) নামে এক শিশু শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় আজ সোমবার দুপুরে নিহতের বাবা আবুল কালাম বাদী হয়ে বেকারির শ্রমিক সর্দার ইব্রাহিম ওরফে শাহজাহানকে প্রধান করে তিনজনের বিরুদ্ধে চন্দ্রগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এর আগে সকালে আলাউদ্দিনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ। সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জের বিসমিল্লাহ রোডে অবস্থিত ‘আনন্দ পেস্ট্রি শপ’ নামের বেকারিতে কাজ করতো। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রাতেই বেকারির মালিক নাছির উদ্দিন রনি ও আল আমিনকে আটক করেছে পুলিশ। পরে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়। নিহত আলাউদ্দিন দত্তপাড়া ইউনিয়নের উত্তর মাগুরী গ্রামের আবুল কালামের ছেলে।

পুলিশ ও নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, চন্দ্রগঞ্জের আনন্দ পেস্ট্রি শপের শ্রমিক ইব্রাহিম ওরফে শাহজাহান, শামীম, মিজান এবং আলাউদ্দিন ছয় মাস ধরে কাজ করে আসছে। এর মধ্যে আলাউদ্দিনকে বিভিন্ন সময়ে কারণে-অকারণে বেকারির মালিক ও অন্য শ্রমিকরা নির্যাতন করতো। গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় আলাউদ্দিনকে মারধর করে হত্যা করা হয়। পরে তার লাশ ওই বেকারি ভবনের দ্বিতীয় তলার সিঁড়ির একটি রডের সঙ্গে গলায় রশি বেঁধে ঝুলিয়ে রাখা হয়। এরপর শ্রমিকরা গেইটে তালা ঝুলিয়ে পালিয়ে যায়।

রাত ৮টার দিকে ওই বেকারির শ্রমিক সর্দার ইব্রাহিম ওরফে শাহজাহান মোবাইল ফোনে বেকারির মালিককে জানান, আলাউদ্দিন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এরপর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে। পরে খবর পেয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানা পুলিশ রাত ১১টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে। শিশু আলাউদ্দিন ছাড়া অন্য শ্রমিকদের বাড়ি ভোলা জেলার চরফ্যাশনে।

নিহত আলাউদ্দিনের বাবা আবুল কালাম বলেন, “শনিবার সকালে আলাউদ্দিন বাড়িতে গিয়ে আমাদেরকে বলেছে, বিভিন্ন সময় বেকারির মালিক ও শ্রমিকরা তাকে মারধর করে। পরিকল্পিতভাবে তারা নির্যাতন করে আমার ছেলেকে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রেখেছে। এটি আত্মহত্যা না, তার শরীরে জখমের চিহ্ন রয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।”

চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি আজিজুর রহমান জানান, নিহতের গলাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ওই শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়। এ ঘটনায় থানায় তিন শ্রমিকের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। জেলার সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. নাসিম মিয়া জানান, শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About admin

Comments are closed.

Scroll To Top