Wednesday , December 13 2017
শিরোনাম
You are here: Home / আইন-আদালত / বরযাত্রী নিয়ে থানায় হাজির বর!

বরযাত্রী নিয়ে থানায় হাজির বর!

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

ঘটনাটি সিনেমার কাহিনী মনে হলে বাস্তবে তাই ঘটেছিলো কক্সবাজারের মহেশখালীতে। ঢাকঢোল বাজিয়ে বরযাত্রী নিয়ে কনের বাড়ি যাচ্ছিলেন বর। কিন্তু বাধ সাধলো বরের বেরসিক বড় ভাই। পথের মধ্যে বিয়ের স্বর্ণলংকার নিয়ে চম্পট দেওয়ায় কনের বাড়ি না গিয়ে শেষ পর্যন্ত বরযাত্রী নিয়ে থানায় হাজির হলেন বর। আলোচিত এই ঘটনাটি ঘটেছে দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর বড় মহেশখালী দেবেঙ্গা পাড়া এলাকায়।

বরের পরিবার সূত্র জানান, গত রবিবার বিয়ের দিন ধার্য্য ছিলো উপজেলার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের দেবাঙ্গা পাড়া গ্রামের আবু ছিদ্দিকের ছেলে মালয়েশিয়া প্রবাসী আব্দু ছালামের সঙ্গে একই উপজেলার হোয়ানক বড়ছড়া গ্রামের আজিজুর রহমানের মেয়ে জিয়াসমিন আক্তার মুন্নীর। পূর্ব নির্ধারিত সময় অনুযায়ী রবিবার দুপুরে কনের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন বরযাত্রী। কিন্তু পথে মধ্যে বরের বড় ভাই ফরিদুল আলম বিয়ের ১০ ভরি স্বর্ণালংকার ভর্তি ব্যাগ নিয়ে গাড়ি থেকে নেমে পালিয়ে যান। অনেক খোঁজাখুজির পরেও তাকে না পাওয়ায় শেষ পর্যন্ত বর যাত্রীসহ মহেশখালী থানায় হাজির হয়। থানায় বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে ছিনতাইয়ের অভিযোগ করে মর্মাহত বর যাত্রা ফেরৎ যান। বড় ভাইয়ের এমন কাণ্ডে হঠাৎ থেমে যায় বিয়ের সানাই।

অন্যদিকে, বরের অপেক্ষায় থাকা কনেও এমন খবরে ভেঙ্গে পড়েন। কনের বাড়িতেও সমানভাবে প্রভাব পড়ে স্বর্ণ ছিনতাই ঘটনার।

কনের পরিবার সূত্র জানায়, কনে জিয়াছমিন আক্তার কৃতিত্বের সঙ্গে ২০১৫ সালে এসএসসি পাশ করেন উপজেলার হোয়ানক বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে। ২০১৩ সালে প্রতিবেশী বখাটে ছেলের উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় তার মা ও তাকে মেরে রক্তাক্ত করে এবং তার বাবার হাতও ভেঙ্গে দিয়েছিল বখাটেরা। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলা এখনো বিচারাধিন। সম্প্রতি বখাটেদের উৎপাতে অতিষ্ট কন্যাদায়গ্রস্থ বাবা মেয়ে জিয়াছমিনকে মালয়েশিয়া প্রবাসী আব্দু সালামের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো।

গত শুক্রবার (৩১ জুলাই) মহেশখালী থানায় হাজির হয়ে বরের মা নূর জাহান ও বোন মোতাহেরা বেগম দাবি করেন, বড় ভাই ফরিদ অভিমানের প্রতিশোধ নিতে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে। বড় ভাই ফরিদুল আলম অস্ত্র ঠেকিয়ে তাদের কাছ থেকে স্বর্ণের ব্যাগটি নিয়ে যায় বলে জানান।

বর আব্দু ছালাম অভিযোগ করে বলেন, এমন একটি শুভ কাজে বড় ভাইয়ের কাছ থেকে এমন কিছু কখনোই আশা করিনি। বিয়ের স্বর্ণ ছিনতাই করে পরিবারের মানসম্মান চরমভাবে ক্ষুন্ন করেছেন। তার বিরুদ্ধে থানায় প্রাথমিকভাবে অভিযোগ করেছি। পরবর্তীতে তার আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাবুল চন্দ্র বণিক জানান, ঘটনাটি অত্যন্ত নেক্কারজনক। খবর পাওয়ার পর পরই পুলিশ ছিনতাই হওয়া স্বর্ণলংকার উদ্ধারে অভিযান চালাচ্ছে। বরের কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা নেওয়া হবে।

Scroll To Top